ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ৩১ মে ২০২০ ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
ই-পেপার রোববার ৩১ মে ২০২০

চট্টগ্রামে বন্ধ হচ্ছে গার্মেন্টস-ইপিজেড
কর্মহীন মানুষের পাশে প্রশাসন পুলিশ
জসীম চৌধুরী সবুজ চট্টগ্রাম
প্রকাশ: শনিবার, ২৮ মার্চ, ২০২০, ১১:২২ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 11

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে লকডাউন কড়াকড়িভাবে পালনে মাঠে রাতদিন সক্রিয় রয়েছে পুলিশ, সেনাবাহিনী ও জেলা প্রশাসন। অলিগলিতে টহল দিয়ে পুলিশ ও সেনাবাহিনী নিশ্চিত করছে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশনাটি। বিদেশি নাগরিক এবং প্রবাসী যারা হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন তাদের বাসা বাড়িতে রাখা হয়েছে নিয়মিত তদারকির আওতায়। সারা দেশে পরিবহন বন্ধ থাকায় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের সঙ্কট যেন না হয় সে জন্য চট্টগ্রাম বন্দর থেকে প্রতিদিন ছয়টি মালবাহী ট্রেন মালামাল নিয়ে ঢাকায় যাওয়া-আসা করছে। যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকায় এসব মালবাহী ট্রেন দ্রুততম সময়ে পৌঁছে যাচ্ছে।
করোনাভাইরাস লকডাউনে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছে শ্রমজীবী মানুষ। চট্টগ্রামে তিনটি ইপিজেড ও গার্মেন্টস কারখানাসমূহে কাজ করে ছয় লাখের মতো শ্রমিক। করোনার ঝুঁকি নিয়ে তাদের কর্মস্থলে যেতে হচ্ছে। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন ও স্বাস্থ্য কর্মীদের ভাবিয়ে তুলেছে। বিজিএমইএ সভাপতি গার্মেন্টস কারখানা বন্ধের অনুরোধ জানালেও তা পালন করা হচ্ছে না। শুক্রবার অবশ্য সব বন্ধ থাকলেও আজ শনিবার খোলা থাকবে অধিকাংশ কারখানা। এতে মারাত্মক ঝুঁকির পাশাপাশি যাতায়াত সমস্যায় ভুগছেন এসব প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা।
বিজিএমইএ’র প্রথম সহসভাপতি এমএ ছালাম সময়ের আলোকে জানান, চট্টগ্রামে গার্মেন্টস কারখানা বন্ধের বিষয়ে তারা আলাপ-আলোচনা করেছেন। যাদের হাতে অর্ডার আছে তাদেরকে ঝুঁকি মোকাবেলার ব্যবস্থা রেখে কারখানা চালু রাখতে বলা হয়েছে। আর যাদের অর্ডার নেই বা বাতিল হয়ে গেছে তাদেরকে শ্রমআইন মেনে বন্ধ ঘোষণা করতে বলা হয়েছে। তিনি বলেন, আমার আটটি কারখানার মধ্যে পাঁচটি শ্রম আইন মেনে বন্ধ করা হয়েছে। রোববারের মধ্যে আরও অনেক গার্মেন্টস কারখানা বন্ধ করা হবে বলে জানতে পেরেছি। করোনা পরিস্থিতির কারণে বাংলাদেশ ৪ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলারের পোশাক তৈরির অর্ডার হারিয়েছে। যার ৩০ শতাংশ চট্টগ্রামের কারখানাগুলোর। যাদের অর্ডার নাই তাদেরও খোলা রেখে লাভ নাই। তাই শ্রমিকদের পাওনা দিয়ে যেন আপাতত বন্ধ রাখা হয় সে সুপারিশ করা হয়েছে। চট্টগ্রাম ইপিজেডে সর্ববৃহৎ প্রতিষ্ঠান প্যাসিফিক জিনস গ্রুপে কাজ করে ৩০ হাজার শ্রমিক-কর্মচারী। গ্রুপের চেয়ারম্যান নাসির উদ্দীন জানান, বৃহস্পতিবারই তিনি তার প্রতিষ্ঠানসমূহ ৪ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করেছেন শ্রম আইনের বিধান মেনে। ইপিজেডে অন্যান্য কারখানার মধ্যে আরও কিছু আজ শনিবার বা কাল রোববার বন্ধ করা হবে বলে জানতে পেরেছেন। দীর্ঘ ১৯ দিনের লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া দিনমজুরদের জন্য চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন খাদ্য সহায়তার উদ্যোগ নিয়েছে। তারা ১৭ হাজার পরিবারকে ১০ কেজি চাল এবং সঙ্গে ডাল-তেল-চিনি-পেঁয়াজ সরবরাহ করবেন ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মসূচির আওতায়। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. মাহবুবুর রহমান করোনা নিয়ে গুজব ছড়ালে তাকে গ্রেফতার করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করতে সিএমপির সব থানাকে নির্দেশ দিয়েছেন। একই সঙ্গে বাড়িতে কারও ওষুধ বা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য প্রয়োজন হলে পুলিশকে জানাতে বলা হয়েছে। শুক্রবার কোতয়ালি, বন্দরসহ কয়েকটি থানার পুলিশ বাসায় অবস্থানকারীদের চাহিদামতো পণ্য তাদের বাসায় পৌঁছে দিয়েছে। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের নেতৃত্বে শুক্রবার তৃতীয় দিনের মতো নগরীর বিভিন্ন স্থানে ব্লিচিং পাউডারযুক্ত পানি ছিটানো হয়েছে। শুক্রবার ফৌজদারহাটের বিআইটিআইডি হাসপাতালে দুজন রোগীর করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]