ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ৩১ মে ২০২০ ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
ই-পেপার রোববার ৩১ মে ২০২০

অসহায়দের পাশে দাঁড়ান
আরিফ খান সাদ
প্রকাশ: রোববার, ২৯ মার্চ, ২০২০, ১২:০০ এএম আপডেট: ২৯.০৩.২০২০ ১২:১৬ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 41

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে স্থবির হয়ে পড়েছে পুরো বিশ^। যে পৃথিবীকে গেøাবাল ভিলেজ বলা হতো তা যেন বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এক দেশ থেকে আরেক দেশের ফ্লাইট বন্ধ। দেশে দেশে জারি করা হয়েছে লকডাউন আর কারফিউ। স্কুল, কলেজ, ভার্সিটি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, বাজার-ঘাট সব বন্ধ। এতে বিপাকে পড়েছে সাধারণ মানুষ। বিশেষত যারা ‘দিন আনে দিন খায়’ শ্রেণির কর্মজীবী মানুষ তাদের দুর্ভোগ সবচেয়ে চরমে। পরিবারের নিত্যপ্রয়োজনীয় খাবার ও পণ্যের জোগান দিতে অপারগ হয়ে পড়েছে তারা। এ পরিস্থিতিতে সাধ্যমতো অসহায় লোকদের সহায়তায় পাশে দাঁড়ানো ও সহমর্মিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া সবার কর্তব্য। এতে আল্লাহর বিশেষ রহমত অর্জিত হয়। অন্যথায় আল্লাহর অনুগ্রহ থেকে বঞ্চিত হতে হয়। হজরত জাবির ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘আল্লাহ তায়ালা সে ব্যক্তির প্রতি অনুগ্রহ করেন না, যে মানুষের প্রতি অনুগ্রহ করে না।’ (বুখারি, হাদিস : ৬০১৩)
মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রার প্রথম প্রয়োজন হচ্ছে খাবার। দুর্যোগপূর্ণ এ সময়ে খাবারের প্রয়োজন ও চাহিদাও অনেক বেশি। কোরআন-হাদিসেও প্রয়োজনগ্রস্তদের খাবারের জোগান দেওয়ার ব্যাপারে অনেক আলোচনা এসেছে। যেসব ঈমানদার ব্যক্তি নিয়মিত ইবাদত পালনের পাশাপাশি অভাবীদের খাবার প্রদান করেন, তাদের প্রশংসা করে আল্লাহ তায়ালা বলেছেনÑ ‘খাবারের প্রতি আগ্রহ থাকা সত্তে¡ তারা অভাবগ্রস্ত, এতিম ও বন্দিদের খাবার দান করে এবং বলেÑ কেবল আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য আমরা তোমাদের খাবার দান করি। আমরা তোমাদের কাছ থেকে প্রতিদান চাই না, কৃতজ্ঞতাও নয়।’ (সুরা দাহর, আয়াত : ৮-৯)। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেনÑ ‘সে ব্যক্তি আমার প্রতি (যথাযথভাবে) বিশ^াস স্থাপন করেনি, যে তৃপ্তিভরে খেয়ে ঘুমায় আর প্রতিবেশী তার পাশে ক্ষুধার্ত থাকে অথচ সে তার সম্পর্কে জানে।’ (আল-মুজামুল কাবির, হাদিস : ৭৫১)
বিপণœ মানুষকে খাবারের জোগান দিলে আল্লাহ বিশেষ নৈকট্য লাভ হয়। মানুষকে খাবার খাওয়ানো আল্লাহর কাছে অত্যন্ত পছন্দনীয় আমল। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেনÑ ‘আল্লাহর কাছে সবচেয়ে প্রিয় ও পছন্দনীয় আমল হলো, কোনো মুসলিমকে খুশি করা বা তার থেকে কষ্ট দূর করা বা তার ঋণ পরিশোধ করা বা তার ক্ষুধা নিবারণ করা।’ (আল-মুজামুল আউসাত, হাদিস : ৬০২৬)। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) থেকে বর্ণিত হয়েছে, এক ব্যক্তি রাসুলুল্লাহকে (সা.) জিজ্ঞেস করলেনÑ ইসলামের কোন আমলটি উত্তম? নবীজী (সা.) বললেন, ‘তুমি মানুষকে খাবার খাওয়াবে এবং পরিচিত-অপরিচিত সবাইকে সালাম দেবে।’ (বুখারি, হাদিস : ১২)
হাশরের মাঠে আল্লাহ তায়ালা সামর্থ্যবান বান্দাকে খাবার প্রদান সম্পর্কে কঠিন জিজ্ঞাসাবাদ করবেন। দুনিয়ায় প্রয়োজনের মুহূর্তে যে অন্যকে খাবারের জোগান দেয়নি অথচ সে সক্ষম ছিলÑ তাকে কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হবে। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘নিশ্চয় আল্লাহ তায়ালা কেয়ামত দিবসে বলবেন, হে আদম সন্তান, আমি অসুস্থ হয়েছিলাম, কিন্তু তুমি আমার শুশ্রƒষা করনি। বান্দা বলবে, হে আমার প্রতিপালক, আপনি তো বিশ^পালনকর্তা, কীভাবে আমি আপনার শুশ্রƒষা করব? তিনি বলবেন, তুমি কি জানতে না যে, আমার অমুক বান্দা অসুস্থ হয়েছিল অথচ তাকে তুমি দেখতে যাওনি? তুমি কি জানো না, যদি তুমি তার শুশ্রƒষা করতে তবে তুমি তার কাছেই আমাকে পেতে? হে আদম সন্তান, আমি তোমার কাছে আহার চেয়েছিলাম, কিন্তু তুমি আমাকে আহার করাওনি। বান্দা বলবে, হে আমার প্রতিপালক, তুমি হলে বিশ^পালনকর্তা, তোমাকে আমি কীভাবে আহার করাব? তিনি বলবেন, তুমি কি জানো না যে, আমার অমুক বান্দা তোমার কাছে খাদ্য চেয়েছিল, কিন্তু তাকে তুমি খাদ্য দাওনি। তুমি কি জানো না যে, তুমি যদি তাকে আহার করাতে তবে আজ তা প্রাপ্ত হতে? হে আদম সন্তান, তোমার কাছে আমি পানি চেয়েছিলাম অথচ তুমি আমাকে পানি দাওনি। বান্দা বলবে, হে আমার প্রভু, তুমি তো রাব্বুল আলামিনÑ তোমাকে আমি কীভাবে পান করাব? তিনি বলবেন, তোমার কাছে আমার অমুক বান্দা পানি চেয়েছিল; কিন্তু তাকে তুমি পান করাওনি। তাকে যদি পান করাতে তবে নিশ্চয় আজ তা প্রাপ্ত হতে।’ (মুসলিম, হাদিস : ৬৭২১)। অন্যদিকে মানুষকে খাবার প্রদানে পরকালে মিলবে অশেষ মর্যাদা ও পুরস্কার। মানুষকে খাবার খাওয়ানোর কারণে বান্দার জন্য রয়েছে জাহান্নাম থেকে মুক্তি ও জান্নাতের সুসংবাদ। হজরত আদি ইবনে হাতিম (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেনÑ ‘তোমরা জাহান্নাম থেকে বেঁচে থাকো; অন্যকে একটি খেজুর খাওয়ানোর বিনিময়ে হলেও।’ (বুখারি, হাদিস : ১৪১৭)। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেনÑ ‘তোমরা মানুষকে খাবার খাওয়াও, আত্মীয়তার সম্পর্ক রক্ষা করো আর মানুষ যখন ঘুমিয়ে যায় তখন নামাজ আদায় করো; অতঃপর জান্নাতে প্রবেশ করো।’ (তিরমিজি, হাদিস : ১৮৫৪)।  আসুন, আমাদের চারপাশে যেসব অভাবী ও প্রয়োজনগ্রস্ত মানুষ আছে সবার খোঁজখবর রাখি এবং সাধ্যমতো খাবার প্রদান করি। এবং অন্যান্য ইবাদতের পাশাপাশি আল্লাহর দরবারে বেশি বেশি দোয়া করি, যেন আল্লাহ বিশ^বাসীকে করোনাভাইরাসের আজাব থেকে মুক্তিদান করেন।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]