ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ২৮ মে ২০২০ ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২৮ মে ২০২০

‘এবার না খেয়ে মরতে হবে’
আখাউড়া (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি
প্রকাশ: সোমবার, ৩০ মার্চ, ২০২০, ১১:৫৫ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 13

স্বপন দেব (৫৫)। আখাউড়ার প্রাণকেন্দ্র সড়ক বাজারের একটি চায়ের দোকানে ৩০০ টাকা হাজিরায় কাজ করতেন তিনি। ওই টাকায় কোনো রকমে চারজনের সংসার চালাতেন। করোনাভাইরাসের কারণে দোকানপাট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় স্বপন এখন গৃহবন্দি। কাজকর্ম বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তার সংসারের চলছে হাহাকার। রোজগার না থাকায় ছেলে মেয়ে নিয়ে দিশেহারা অবস্থা। সাহায্য তো দূরের কথা গত তিন দিনে স্বপনদের খোঁজ নেইনি কেউ।
আখাউড়া উপজেলার আমোদাবাদ গ্রামের বাসিন্দা স্বপন দেব। জমিজমা বলতে পৈত্রিক ভিটে ছাড়া আর কিছুই নেই। শারীরিক অক্ষমতার কারণে অন্য কোনো কাজ করতে না পারায় ছোট বেলা থেকে বিভিন্ন চায়ের দোকানে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। আখাউড়া পৌরশহরের মায়াবী সিনেমা হল মোড়ের সেলিম মিয়ার চায়ের দোকানে কাজ করে প্রতিদিন পেতেন ৩০০ টাকা। ওই টাকা দিয়ে সংসার চালিয়ে এক ছেলে ও এক মেয়েকে পড়াশোনা করাচ্ছেন। করোনার সতর্কতায় দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়ায় স্বপনের সংসার জীবন এখন থেমে গেছে।
স্বপন দেব জানান, তার একমাত্র পুঁজি নিজের জান (শরীর)। তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে কাজ কাম বন্ধ হয়ে পড়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে এবার না খেয়ে মরতে হবে।
আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাহমিনা আক্তার রেইনা বলেন, জরুরি খাদ্য কর্মসূচির আওতা থেকে হতো দরিদ্রদের মাঝে কিছু চাল ডাল দেওয়া হচ্ছে। তবে বরাদ্দ খুবই কম।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]