ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ২৮ মে ২০২০ ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২৮ মে ২০২০

এক প্যাকেট খাবারের আশায় অপেক্ষার যেন শেষ নেই
বানারীপাড়া(বরিশাল)প্রতিনিধি
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ, ২০২০, ৯:৫২ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 178

মায়া রাণী দাস। শরীর যেন কঙ্কালসার। শতবর্ষ ছুঁই ছুঁই। বানারীপাড়া বন্দর বাজারের এক সময়ের কুলি স্বামী দাস মহাশয়কে হারিয়েছেন বহু আগে। স্বামীকে হারিয়ে বন্দর বাজারে হোটেল-রেষ্টুরেন্টে কলসিতে করে পানি সরবরাহ করে কলসি প্রতি ২/১ টাকা করে পেতেন। তাতেই চলতো তার জীবন সংসার। বয়সের ভারে ন্যুজ হয়ে পানি টানার সেই শক্তিটুকুও হারিয়ে ফেলেছেন। একমাত্র ছেলে দিনমজুর। নিজের সংসার চালানোর পরে মাকে খাওয়ানোর সঙ্গতি নেই ছেলের। তাই তো বেঁচে থাকার জন্য অশীতিপর এ নারী জীবনের শেষ বেলায় ভিক্ষার পথ বেছে নিয়েছেন।

প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের কারনে বন্দর বাজার সহ গোটা এলাকা লক ডাউন ও সবাই হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকায় ভিক্ষাবৃত্তি বন্ধ হয়ে গেছে তার। ফলে অনাহারে-অর্ধাহারে কাটছে জীবন। এভাবে অনির্দিষ্টকালের জন্য চলতে থাকলে কি খাবেন ! এ দুর্ভাবনায় দু’চোখে তার ঘোর অমানিশার অন্ধকার।

গত দু’ তিন ধরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ আব্দুল্লাহ সাদীদের কাছে এক প্যাকেট খাবারের ( চাল,ডাল,তেল ও আলু) আশায় ঘুরছেন। ইউএনও গত রোববার তাকে কথা দিয়ে ছিলেন পৌর শহরের ৯ নং ওয়ার্ডে তার বাসায় গিয়ে খাবার পৌঁছে দেবেন।সেই থেকে ইউএনও’র আগমনী পথের পানে চাতক পাখির মতো তিনি তাকিয়ে আছেন, কিন্তু তার অপেক্ষার প্রহর যেন শেষ হয়না...... ক্ষুধার জ্বালায় জ্বলে পুড়ে মঙ্গলবার সাজের বেলায় বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় বেড়িয়েছিলেন খাবারের আশায় । পথের বাঁকে দেখা হয়ে যায় এ প্রতিবেদকের সঙ্গে। হতাশার সুরে বললেন বাসায় খাবারের প্যাকেট পৌঁছে দেওয়ার ইউএনও’র প্রতিশ্রুতির সাক্ষী ছিলে তুমি। বলতে পারো কবে পাব সেই খাবারের প্যাকেট......তার প্রশ্নের উত্তর জানা না থাকায় ব্যক্তিগত উদ্যোগে সাহায্যের আশ্বাস
দেন তাকে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]