ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ৪ জুন ২০২০ ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ৪ জুন ২০২০

করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি, এক দিনে আক্রান্ত ১৮
মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: সোমবার, ৬ এপ্রিল, ২০২০, ১২:০০ এএম আপডেট: ০৬.০৪.২০২০ ২:৩৩ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 24

করোনাভাইরাস পরীক্ষার সংখ্যা বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে দেশে আক্রান্তের সংখ্যাও বাড়ছে। রোববার করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যায় হঠাৎ করে উল্লম্ফন হয়েছে। এক দিনেই আক্রান্ত হয়েছে ১৮ জন, যা এখন পর্যন্ত এক দিনে আক্রান্ত হওয়া সংখ্যার হিসাবে সবচেয়ে বেশি। ৩৬৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে এই পরিমাণ রোগী শনাক্ত হলো। আক্রান্ত ১৮ জনের মধ্যে ১২ জনই ঢাকার বাসিন্দা। এর আগে এক দিনে সবচেয়ে বেশি ৯ জন আক্রান্ত হয়েছিল। গত কয়েকদিন ধরে পরীক্ষার সংখ্যা বাড়ানোর পর থেকে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। দেশে কোভিড-১৯-এ মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯ জন। আক্রান্তদের মধ্যে আরও তিনজন সুস্থ হয়ে ওঠায় এ পর্যন্ত মোট ৩৩ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছে।
রোববার স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে যুক্ত হয়ে দেশে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের সর্বশেষ পরিস্থিতি তুলে ধরেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, যিনি মারা গেছেন তিনি ৫৫ বছর বয়সি একজন পুরুষ, বাড়ি নারায়ণগঞ্জে। ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।
পরে নতুন আক্রান্ত, মৃতসহ সার্বিক বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তথ্য দেন রোগতত্ত¡, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশের ১৪টি কেন্দ্রে সংগৃহীত ৩৬৭টি নমুনার ফলাফলে ১৮ জনের আক্রান্ত হওয়ার বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে ১৩ জনের কোভিড-১৯ নিশ্চিত করেছে আইইডিসিআর। বাকি ৫ জনের পরীক্ষা হয়েছে ঢাকার বাইরের গবেষণাগারে। নতুন রোগীদের মধ্যে ১৫ জন পুরুষ, ৩ জন নারী। মোট ৩৩ জন সুস্থ হয়ে ওঠায় এখন মোট ৪৬ জন রোগী চিকিৎসাধীন আছে। তাদের মধ্যে হাসপাতালে আছে ৩২ জন আর ১৪ জন বাড়িতেই চিকিৎসা নিচ্ছে।
সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, ওই ১৪ জনের লক্ষণ উপসর্গ খুবই মৃদু, তারা আমাদের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে ১১ থেকে ২০ বছর বয়সের একজন, ৩১ থেকে ৪০-এর মধ্যে ২ জন, ৪১ থেকে ৫০-এর মধ্যে ৪ জন, ৫১ থেকে ৬০-এর মধ্যে ৯ জন এবং দুজন ষাটোর্ধ্ব। তাদের বেশিরভাগই কয়েকটি ‘ক্লাস্টার’ থেকে এসেছে বলে জানান তিনি।
ফ্লোরা বলেন, এখন পর্যন্ত ঢাকার বাসাবোতে ৯ জন, বৃহত্তর মিরপুরে ১১ জন, মাদারীপুর এবং নারায়ণগঞ্জে ১১ জন করে আক্রান্ত হয়েছে। মাদারীপুরে ক্লাস্টার আগে থেকেই ছিল। এ কারণে সবার আগে আমরা মাদারীপুরে নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিলাম। নারায়ণগঞ্জে আমাদের নিয়ন্ত্রণ জোরদার করেছি। এই ১৮ জনের বেশিরভাগই আগে পাওয়া ক্লাস্টারের অংশ। মিরপুরেও আমরা আগে থেকেই নিয়ন্ত্রণে নিয়েছিলাম। সেখানে আক্রান্ত ব্যক্তিদের সংস্পর্শে যারা এসেছিল, তাদের ছাড়াও সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের আমরা পরীক্ষা করছি, যাতে রোগটি সেখান থেকে ছড়িয়ে না পড়ে।
আইইডিসিআর পরিচালক বলেন, দেশের বিভিন্ন জায়গায় রোগী পাওয়া যাচ্ছে, এ কারণে কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরু হয়েছে বলা যায়। তবে তা ক্লাস্টার ভিত্তিতে আছে। এখনও বলছি, আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। কিন্তু একটা কথা মনে রাখতে হবে, জনসমাগম এড়িয়ে চলতে হবে। এটা যদি না করি তাহলে সংক্রমণ কিন্তু ক্লাস্টার থেকে সব জায়গায় ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা আছে। সুতরাং সবাইকে অনুরোধ করছি সব ধরনের জনসমাগম এড়িয়ে চলুন।
এ নিয়ে আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হলো ৩৩ জন। বর্তমানে বাংলাদেশে ৪৬ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রয়েছে। এই ৪৬ জনের মধ্যে ৩২ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে এবং বাকি ১৪ জন বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছে। বর্তমানে দেশের ১৪টি কেন্দ্রে করোনাভাইরাসের পরীক্ষা করা হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মোট ৩৬৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ ব্রিফিংয়ে বলেন, এখন পর্যন্ত ৬৫ হাজার ৮০২ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইন এবং ২৬৭ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন করা হয়েছে। এর মধ্য গত ২৪ ঘণ্টায় হোম কোয়ারেন্টাইনে গেছে ১ হাজার ১১১ জন, প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে গেছে ৯ জন। এ পর্যন্ত ৫৩ হাজার ৪১২ জনকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে; ফলে এখন কোয়ারেন্টাইনে আছে ১২ হাজার ৬৫৯ জন। এখন পর্যন্ত মোট ৫২০ জনকে আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে ১০ জনকে আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায়। বর্তমানে আইসোলেশনে আছে ৮৪ জন।








এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]