ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ২৫ মে ২০২০ ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
ই-পেপার সোমবার ২৫ মে ২০২০

করোনায় তিতুমীর কলেজে 'আইসোলেশন কেন্দ্র'
সাব্বির আহমেদ
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল, ২০২০, ৫:০৫ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 3560

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে সরকারি তিতুমীর কলেজে ‘আইসোলেশন সেন্টার’ তৈরি করা হচ্ছে৷ দেশের একটি বেসরকারি কোম্পানির সহযোগিতায় গত দুইদিন ধরে আইসোলেশন প্রস্তুতের কাজ চলছে। 

নভেল করোনাভাইরাসে প্রাদুর্ভাবের কারণে ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ আছে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। রাজধানীর মহাখালীতে তিতুমীর কলেজও এতোদিন পুরো লক ডাউন ছিল। প্রধান ফটকেও দেখা যায়নি কোনো নিরাপত্তারক্ষী। কিন্তু গতকাল বুধবার থেকে কলেজে 'করোনা প্রতিরোধ কমিটি' স্টিকারযুক্ত গাড়ি ঢুকতে থাকে। প্রবেশপথে ৫-৭ জন আনসার সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে কলেজের ভেতরে গিয়ে দেখা যায়, পুরো মাঠ জুড়ে বানানো হচ্ছে করোনা রোগীদের জন্য আইশোলেশন কেন্দ্র। মধ্য মাঠে হার্ডবোর্ডের তৈরি দুইটি বুথ তৈরি করা হয়েছে। মাঠের উত্তর প্রান্তজুড়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সচেতনতামূলক ব্যানার টানানো হয়েছে। 

পাশাপাশি কলেজের নতুন একাডেমিক বিল্ডিংয়ের নিচতলা ও দোতলা সব পরিস্কার করে পুরো খালি করা হয়েছে। এসব কাজ করছেন তিতুমীর কলেজের কর্মচারী ও আইসোলেশনের দায়িত্বে থাকা ওভাল গ্রুপের লোকজন। মাঠে এখনো অনেক কাঠ ও তাবু তৈরির সরঞ্জামি পড়ে থাকতে দেখা গেছে। তবে যারা কাজ করছেন তাদের কয়েকজনের মুখে করোনারোধে মাস্ক পরা ছিল না।

মাস্ক কেন পরেননি, জানতে চাইলে ব্যানার টানানোর কাজ করা একজন জানান, 'মাস্ক পরে কাজ করা যায় না, বিরক্ত লাগে। সিগারেট খেতেও অসুবিধে হয়'।

পরে নতুন ভবনের উপরে গিয়ে দেখা যায়, একটি বিশাল কক্ষ পুরো খালি করে পরিস্কার রাখা হয়েছে। পাশে আরেকটি কক্ষে প্রায় ১৫-২০ জন নারী একসঙ্গে বসে আছেন। ওই কক্ষে আইসোলেশনের সরঞ্জামের সঙ্গে প্রস্তুত করা হয়েছে কোম্পানির স্টাফদের থাকার চৌকি। তবে নারীরা সবাই স্বাস্থ্যকর্মী কি না, নিশ্চিত হওয়া যায়নি। 

এসময় ওভাল কোম্পানির একাধিক কর্মকর্তা উপস্তিত থাকলেও কেউ কথা বলতে রাজি হননি। হুমায়ুন কবির হিমু নামে একজন সিনিয়র কর্মকর্তা সময়ের আলোকে বলেন, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আমরা সারাদেশে ৩০০টি আইসোলেশন সেন্টার প্রস্তুতের কাজ করছি। তিতুমীর কলেজে দুইটি বুথ ও ১টি স্কুল ঘর রাখা হয়েছে। নিচতলায় স্টাফরা থাকবেন আর উপরে আইসোলেশনের জন্য ব্যবহার করা হবে। 

তিনি জানান, এই আইসোলেশন তৈরির কাজ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তত্বাবধানে হচ্ছে। সেনা সদস্যরা দেখভাল করছেন। এর বাইরে ওই কর্মকর্তা কোন তথ্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। কত শয্যাবিশিষ্ট এই আইসোলেশন কেন্দ্র, তাও জানাননি তিনি। 

তবে তিতুমীর কলেজে আইসোলেশন প্রস্তুত সম্পর্কে কোন তথ্য দিতে পারেননি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. মাঈদুল ইসলাম প্রধান। সময়ের আলোকে তিনি বলেন, তিতুমীর কলেজে আইসোলেশন কেন্দ্র হচ্ছে কি না, আমার জানা নেই। তবে ২০০ শয্যার আইসোলেশন প্রস্তুত করা হচ্ছে বসুন্ধরা কনভেনশন সিটির নবরাত্রি হলে। 
এ বিষয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের সঙ্গে যোগাযোগ করেও সাড়া পাওয়া যায়নি। 

এদিকে সরকারি তিতুমীর কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. আশরাফ হোসেন বলেন, আমি বাসায় আছি। যতটুকু জানি, কলেজে ডাক্তাররা কাজ করছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সচিবালয় থেকে এটি তদারকি হচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে বুধবার আমাকে ফোনে জাননো হয়েছে। সেইসঙ্গে এ সম্পর্কিত প্রধানমন্ত্রীর সচিবালয় থেকে আমার কাছে চিঠি দিয়ে তিতুমীর কলেজ ক্যাম্পাস ব্যাবহারের কথা জানানো হয়েছে এবং সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে।

জানা যায়, আইসোলেশন কেন্দ্রে যারা দেশের বাইরে থেকে এসেছেন কিংবা সম্ভাব্য করোনা রোগীদের সংস্পর্শে এসেছেন বা নিশ্চিতভাবে করোনায় আক্রান্ত মানুষের সঙ্গে মিশেছেন, তাদেরকে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন রাখা হবে। 
তারা কাউকে স্পর্শ করবেন না। নিজেদের স্বাস্থ্য নিজেরা পর্যবেক্ষণ করবেন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]