ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ৩ জুলাই ২০২০ ১৯ আষাঢ় ১৪২৭
ই-পেপার শুক্রবার ৩ জুলাই ২০২০

পোশাক খাত বাজেটে চায় নগদ ও নীতি সহায়তা
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২১ মে, ২০২০, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 22


পোশাক খাত আসন্ন ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে নগদ ও নীতি সহায়তা চায়। একই সঙ্গে তারা বর্তমান উৎসে কর হার আরও পাঁচ বছর পর্যন্ত অব্যাহতি চায়। অর্থমন্ত্রীর কাছে পাঠানো বাজেট প্রস্তাবনায় পোশাক খাতের দুটি সংগঠন এই দুটি বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছে বলে জানা গেছে। পোশাক খাতের দুটি সংগঠনের মধ্যে একটি হচ্ছে বিজেএমইএ ও অপরটি বিকেএমইএ। প্রস্তাবনায় তারা উল্লেখ করেছে, করোনা আক্রান্ত বিশ্ববাজারে টিকে থাকার জন্য রফতানিমুখী শিল্পের জন্য এবারের বাজেটে সরকারের কাছ থেকে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন নীতি সহায়তা। আর এর পাশাপাশি রয়েছে নগদ সহায়তা।
প্রস্তাবনায় আরও উল্লেখ রয়েছে, দেশীয় কাঁচামালের ব্যবহার করে রফতানির বিপরীতে অন্তত আগামী দুই বছরের জন্য রফতানি মূল্যের ওপর সরাসরি ১০ শতাংশ নগদ সহায়তা প্রয়োজন। এর পাশাপাশি বিদেশ থেকে আমদানি করা কাঁচামাল ব্যবহার করে রফতানির বিপরীতে ৪ শতাংশ নগদ সহায়তা। এই মুহূর্তে বিশ্ববাজারে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার জন্য এটির আর কোনো বিকল্প নেই।
সংগঠন দুটি মনে করে, বিশ্ববাজারে চাহিদা ৪০ শতাংশ সঙ্কুচিত হয়ে আসছে। এর ফলে কমে আসবে পণ্যের মূল্য। এই অবস্থায় পোশাক খাতে টিকে থাকা অনেক কঠিন হয়ে পড়বে। বিশ্ব মহামারি করেনার কারণে আগামী এক বছরে অনেক কলকারখানা বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এমনকি, অনেক উদ্যোক্তা হারিয়ে যেতে পারেন। তাদের নিরাপদ চলে যাওয়ার জন্য একটি দিকনির্দেশনা থাকা অত্যন্ত জরুরি। প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, প্রত্যাবসিত রফতানি মূল্যের ওপর এআইটি ও তা চূড়ান্ত আয়কর হিসেবে দশমিক ২৫ শতাংশ আগামী এক বছর বহাল রাখা প্রয়োজন। তারা নগদ সহায়তার ওপর ৫ শতাংশ কর প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে। রফতানি সংশ্লিষ্ট স্থানীয়ভাবে সংগৃহীত সব পণ্য ও সেবার ক্ষেত্রে ভ্যাট মওকুফসহ রিটার্ন দাখিল করা থেকে অব্যাহতি প্রদানের দাবি করা হয়েছে তাদের প্রস্তাবনায়। বিদ্যমান উৎসে কর দশমিক ২৫ শতাংশ রাখার দাবি করা হয়েছে। একই সঙ্গে তা যেন আগামী পাঁচ বছর পর্যন্ত কার্যকর থাকে সে বিষয়টি বিবেচনায় আনতে বলা হয়েছে। রফতানির বিপরীতে নগদ সহায়তার ওপর আয়কর কর্তনের হার ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে শূন্য শতাংশ করার দাবি জানানো হয়েছে।
রফতানিমুখি তৈরি পোশাক শিল্পের জন্য করপোরেট করহার ১২ শতাংশ আর গ্রিন কারখানার জন্য ১০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। আর তা যেন আগামী ৫ বছর পর্যন্ত বহাল থাকে। কারখানাকে নিরাপদ, ঝুঁকিমুক্ত ও পরিবেশবান্ধব করে গড়ে তোলার জন্য প্রয়োজনীয় বেশ কিছু পণ্যের শুল্ক, ভ্যাট ও অগ্রিম করসহ অন্যান্য সকল করমুক্ত রেয়াতি সুবিধা চাওয়া হয়েছে তাদের প্রস্তাবনায়।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]