ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ ১৬ আশ্বিন ১৪২৭
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০

২৪ ঘণ্টায় ২৪ জনের মৃত্যু
এম মামুন হোসেন
প্রকাশ: শনিবার, ২৩ মে, ২০২০, ১২:০০ এএম আপডেট: ২৩.০৫.২০২০ ২:৫০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 110

বিশ^ব্যাপী আতঙ্ক ছড়ানো করোনাভাইরাসে বাংলাদেশে সংক্রমণের হার ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। এক দিনেই রেকর্ড ২৪ জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪৩২ জন। গত দশ সপ্তাহে কখনও এক দিনে এত বেশি মৃত্যু বাংলাদেশকে দেখতে হয়নি। এই সময়ে দেশে নতুন করে শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৬৯৪ জন করোনার রোগী। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০ হাজার ২০৫ জনে। ৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম রোগীর খোঁজ মেলার পর দশ দিনের মাথায় দেশে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। এদিকে ঈদুল ফিতরের ছুটি শেষ হওয়ার পর প্রথম ১৪ দিন করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ সময়ে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা দুই-ই বাড়বে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, সংক্রমণের গতি ঊর্ধ্বমুখী। মে মাসে সংক্রমণের শীর্ষ পর্যায় আসবে এমন ধারণা থাকলেও তা এখনও আসেনি। জুনের মাঝামাঝি সর্বোচ্চ সংক্রমণ হতে পারে। এই হার কমতে ঈদুল আযহা পর্যন্ত সময় লাগতে পারে বলেও অনেকের মত। একই হারে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পায় তাহলে মে মাস শেষে আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াবে ৩৮-৪০ হাজারে। মৃত্যু হতে পারে ৫শ’র বেশি মানুষের। এর আগে দেশের আট জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ পূর্বাভাস দিয়েছিলেন, মে মাসের শেষ নাগাদ দেশে শনাক্তের সংখ্যা আনুমানিক ৪৮-৫০ হাজারে গিয়ে দাঁড়াবে। সব মিলিয়ে মৃত্যু হতে পারে ৮০০-১০০০ জনের।
দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে শুক্রবার নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, ৪৭টি ল্যাবের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৯ হাজার ৯৯৩টি। পরীক্ষা করা হয়েছে ৯ হাজার ৭২৭টি। মোট পরীক্ষা করা হয়েছে ২ লাখ ২৩ হাজার ৮৪১টি। তিনি বলেন, ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ২৪ জনের। এদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৩ জন এবং চট্টগ্রাম বিভাগে ৯ জন, বরিশাল বিভাগে একজন, ময়মনসিংহ বিভাগে রয়েছেন একজন। এদের মধ্যে হাসপাতালে ১৩ জন, বাসায় আটজনের মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যু হয়েছে একজনের। বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৮১-৯০ বছরের মধ্যে একজন, ৭১-৮০ বছর বয়সের মধ্যে দুজন, ৬১-৭০ বছরের মধ্যে ছয়জন, ৫১-৬০ বছরের মধ্যে পাঁচজন, ৪১-৫০ বছর বয়সের মধ্যে দুজন, ৩১-৪০ বছরের মধ্যে তিনজন, ২১-৩০ বছরের মধ্যে রয়েছেন পাঁচজন।
নাসিমা সুলতানা বলেন, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছে ৫৮৮ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ৬ হাজার ১৯০ জন। তিনি বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ২২৫ জন। মোট আইসোলেশনে আছেন ৪ হাজার ৬০ জন। হোম ও প্রতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে এসেছেন ২ হাজার ৫০৭ জন। অদ্যাবধি কোয়ারেন্টাইনে এসেছেন ২ লাখ ৫৮ হাজার ৯৪ জন। কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন ২ লাখ ৩ হাজার ১৭১ জন বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৫৪ হাজার ৯২৩ জন। তিনি বলেন, সারা দেশে ৬৪ জেলায় ৬২৬টি প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের জন্য প্রস্তুত। তাৎক্ষণিকভাবে এসব প্রতিষ্ঠানে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের সেবা দেওয়া যাবে ৩১ হাজার ৮৪০ জনকে। নতুন তিনটি হাসপাতালসহ ১৭টি বেসরকারি হাসপাতালে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা কার্যক্রম শুরু করেছে। ১৭টি বেসরকারি হাসপাতালে মধ্যে ১৪টি ঢাকার ভেতরে। বাকি তিনটি মধ্যে দুটি চট্টগ্রামে, একটি বগুড়ায়। বেসরকারি ১৭টি হাসপাতালসহ বর্তমানে দেশের ৪৭টি ল্যাবরেটরিতে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, সারা দেশে আইসোলেশন শয্যা রয়েছে ১৩ হাজার ২৮৪টি। ঢাকার ভেতরে রয়েছে ৭ হাজার ২৫০টি। ঢাকা সিটির বাইরে ৬ হাজার ৩৪টি শয্যা আছে। আইসিইউ সংখ্যা আছে ৩৯৯টি, ডায়ালাসিস ইউনিট আছে ১০৬টি।
বেসরকারি ১৭টি হাসপাতাল ও ডায়গোনস্টিক সেন্টারে করোনা পরীক্ষা : বাংলাদেশের ১৭টি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে করোনাভাইরাসের আরটি-পিসিআর পরীক্ষার অনুমোদন দিয়েছে সরকার। এর মধ্যে ১৪টির অবস্থান ঢাকায়। চট্টগ্রামে দুটি, বগুড়ায় একটি। ঢাকার ১৪টি প্রতিষ্ঠান হলোÑ স্কয়ার হাসপাতাল, ইউনাইটেড হাসপাতাল, ইবনে সিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ল্যাব এইড হাসপাতাল, এভার কেয়ার হাসপাতাল, আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কেয়ার মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব হেলথ সায়েন্স জেনারেল হাসপাতাল, আইসিডিডিআর’বি, প্রাভা হেলথ বাংলাদেশ লিমিটেড, বায়োমেড ডায়াগনস্টিক, ডিএমএফ আর মলিকিউলার ল্যাব ডায়াগনস্টিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ডি এনএ সলিউশন লিমিটেড। চট্টগ্রামের শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরি লিমিটেড, ইম্পেরিয়াল হসপিটাল লিমিটেড রয়েছে। এ ছাড়া বগুড়া টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড রফাতুল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতালে করোনা পরীক্ষা যাবে।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]