ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০ ৩০ আষাঢ় ১৪২৭
ই-পেপার মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০

দুই জেলায় স্পিরিট পানে ১৭ জনের মৃত্যু
হোমিও দোকানি গ্রেফতার
বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি
প্রকাশ: শুক্রবার, ২৯ মে, ২০২০, ১২:০০ এএম আপডেট: ২৯.০৫.২০২০ ১:৫৪ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 19

ঈদ আড্ডায় রেক্টিফাইড স্পিরিট পানে দিনাজপুরের বিরামপুরও পাশের জেলা রংপুরে এক দম্পতিসহ ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।এদেও মধ্যে বিরামপুরের নয়জনের মৃত্যু হয়েছে বুধবারের বিভিন্ন সময়ে এবং রংপুরের আটজনের মৃত্যু হয় সোমবার থেকে বুধবার এই তিন দিনে। এ ঘটনায় দিনাজপুরের এক হোমিও ওষুধের দোকানিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার সকালে অসুস্থ অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথেই তিনজন ও দুপুর দেড়টায় বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্বামী-স্ত্রী ও বিকাল তিনটায় দিনাজপুর মেডিকেলে নিতে পথে একজন ও রাতে দিনাজপুর ও রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনজনের মৃত্যু হয়। মৃতরা হলেন মাহমুদপুর গ্রামের সুলতান মাহমুদের ছেলে মহাসিন আলী (৩৮), আনোয়ারুল ইসলামের ছেলে আব্দুল মতিন (২৭), তোজাম্মেল হোসেনের ছেলে আজিজুল ইসলাম (৩৩), আব্দুল আজিজের ছেলে সোহেল রানা (৩০), আব্দুল খালেকের ছেলে আব্দুল আলীম (২৮), আফল উদ্দিনের ছেলে মনোয়ার হোসেন মনো (৩২), পৌরশহরের হঠাৎপাড়া মহল্লার নূর ইসলামের ছেলে শফিকুল ইসলাম (৪৫), শফিকুল ইসলামের স্ত্রী মঞ্জুয়ারা বেগম (৩৫) ও ইসলামপাড়ার তাপস কুমার রায়ের ছেলে অমৃত রায় (৩০)।
দিনাজপুর ও রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীনরা হলো মাহমুদপুর গ্রামের জালাল উদ্দিনের ছেলে আব্দুস সাত্তার (৩৭), শহিদুল ইসলামের ছেলে মো. হৃদয় (২১), গোলাম মোস্তফার ছেলে জার্জেস শাহ (৩৮), আব্দুল খালেকের ছেলে শাহিনুর রহমান (৪০), রুহুল আমিনের ছেলে আনিসুর রহমান (৩৩) ও মনসুর আলী (৩৫)।
মৃত মহাসিন আলীর বাবা সুলতান মাহমুদ জানান, মহাসিন নিয়মিত স্পিরিট পান করত। পরশু রাতে বন্ধুদের সঙ্গে স্পিরিট পান করলে তাকে অনেক বকাঝকা করি। সে আর কখনও স্পিরিট পান করবে না এমন প্রতিশ্রুতি দিলেও মঙ্গলরাতে আবার সে স্পিরিট পান করে বাড়িতে আসে। পরে সে অসুস্থ হলে তাকে বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর শারীরিক অবস্থা আরও খারাপ হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। পরে রংপুর নেওয়ার পথে মহাসিনের মৃত্যু হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সোলায়মান হোসেন মেহেদী জানান, রেক্টিফাইড স্পিরিট পানে অসুস্থ হয়ে বুধবার সকালে ১৫ জন ব্যক্তি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসেন। তিনজনকে রংপুর ও দিনাজপুর মেডিকেলে রেফার্ড করলে সকালে হাসপাতালে নেওয়ার পথে চারজন, দুপুরে বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্বামী-স্ত্রী ও রাতে দুই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনজনের মৃত্যু হয়।
বিরামপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামান মনির জানান, ছয়জনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
ওসি আরও জানান, এ ঘটনায় স্পিরিট বিক্রির সঙ্গে জড়িত সন্দেহে মাহমুদপুর শান্তি মোড় বাজারের পল্লী হোমিওহলের স্বত্বাধিকারী ডা. মো. আব্দুল মান্নানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। বুধবার রাতেই আটক ডাক্তারের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা হয়েছে।
রেক্টিফাইড স্পিরিট পানে মৃত্যুর ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তৌহিদুর রহমান, বিরামপুর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মিথুন সরকার ও পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকার টুটুল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]