ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০ ৩০ আষাঢ় ১৪২৭
ই-পেপার মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০

করোনাভাইরাসের জিন বিন্যাস উন্মোচন করল বিসিএসআইআর
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: রোববার, ৩১ মে, ২০২০, ১১:০৫ পিএম আপডেট: ৩১.০৫.২০২০ ১:১২ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 21

দেশের তিনজন কোভিড-১৯ রোগীর নমুনা থেকে নতুন করোনাভাইরাসের সম্পূর্ণ জিন বিন্যাস বা জিনোম সিকোয়েন্সিং করেছেন বাংলাদেশ
শিল্প ও গবেষণা পরিষদের (বিসিএসআইআর) জিনোমিক রিসার্চ গবেষণাগারের বিজ্ঞানীরা।
গবেষণাগারের প্রধান সেলিম খান শনিবার সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, তিনজন কোভিড-১৯ রোগীর সম্পূর্ণ জিনোম সিকোয়েন্সের পর ডেটা বিশ্লেষণে দেখা যায় অ্যামাইনো এসিড লেভেলে মোট ৯টি ভেরিয়েন্ট রয়েছে।
সেলিম খান বলেন, ভ্যাক্সিন আবিষ্কার করতে গেলে তার সম্পূর্ণ জিনোম সিকোয়েন্সিং খুব গুরুত্বপূর্ণ। প্রথমে উহানে যে ভাইরাসের সংক্রমণ হয়েছিল, আমরা তার প্রেক্ষিতে দেখছি, ভাইরাস ক্রমাগতভাবে তার জেনেটিক বৈশিষ্ট্য পাল্টে ফেলছে। এখন জিনোম সিকোয়েন্সিং করেই আমরা ভ্যাক্সিন আবিষ্কারের পথ পাব। তিনি আরও বলেন, ডেটা অ্যানালাইসিসে বাংলাদেশের এই ভাইরাসটির সঙ্গে ৯৯ দশমিক ৯৯ শতাংশ মিল পাওয়া যায় ইউরোপিয়ান উৎসের; বিশেষ করে সুইডেনের সঙ্গে। বিস্তারিত জানার জন্য বিসিএসআইআরের তিনটিসহ বাংলাদেশে সর্বমোট ২৩টি মাত্র ফুল সিকোয়েন্সিং ডেটা মোটেই যথেষ্ট নয়।
তিনি বলেন, উৎস, ক্লাস্টার, ট্রান্সমিশন ডাইনামিক্স, মলিকুলার ডেটিং, ভ্যাক্সিন ডিজাইনসহ অন্যান্য গবেষণা কাজ বেগবান করার জন্য এই মুহূর্তে প্রয়োজন অনেক বেশি সিকোয়েন্সিং ডেটা। তাই বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় বাংলাদেশের সম্ভাব্য সব এলাকা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে বিসিএসআইরের জিনোমিক রিসার্চ গবেষণাগারে সিকোয়েন্সিং করার নির্দেশনা দিয়েছে।
জিনোম হলো প্রাণী বা উদ্ভিদের জেনেটিক বৈশিষ্ট্যের বিন্যাস বা নকশা। কোনো প্রাণী বা উদ্ভিদের জিনোমে নিউক্লিওটাইডগুলো কীভাবে বিন্যস্ত আছে তার লিপিবদ্ধ করাকে বলে জিনোম সিকোয়েন্সিং। এই নকশার ওপরই নির্ভর করে ওই প্রাণী বা উদ্ভিদের বৈশিষ্ট্য।
এর আগে চাইল্ড হেলথ রিসার্চ ফাউন্ডেশন (সিএইচআরএফ) এবং ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব বায়োটেকনোলজির (এনআইবি) গবেষকরা নতুন করোনাভাইরাসের জিনোম সিকোয়েন্সিং করেছেন। এ ছাড়া নতুন এই ভাইরাসের জিন রহস্য উন্মোচনে বিস্তৃত গবেষণা শুরু করেছে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়।
জিনোম সিকোয়েন্সিং করার জন্য বিসিএসআইআরের জিনোমিক রিসার্চ গবেষণাগারের বিজ্ঞানীদের নমুনা সরবরাহ করেছে বাংলাদেশের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ল্যাবরেটরি মেডিসিন অ্যান্ড রেফারেল সেন্টার।
সম্পূর্ণ জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ের পর বিশ^ব্যাপী ইনফ্লুয়েঞ্জা তথ্য সরবরাহকারী জার্মানিভিত্তিক প্রতিষ্ঠান জিআইএসএআইডিতেও তথ্য সরবরাহ করা হয়েছে। সেই তথ্য তাদের ওয়েবসাইটেও প্রকাশিত হতে যাচ্ছে বলে জানান সেলিম খান। তিনি আরও জানান,  করোনাভাইরাসের নমুনার জিনোম সিকোয়েন্স করতে তারা নেক্সটসেক-৫০০ মেশিন ব্যবহার করেছেন।







সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]