ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০ ৩০ আষাঢ় ১৪২৭
ই-পেপার মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০

আল্লাহকে সেজদা করার তাৎপর্য
মাওলানা গোলাম হাসিব
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২ জুন, ২০২০, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 48

আল্লাহ রাব্বুল আলামিন সৃষ্টিজগতকে সাজিয়েছেন একমাত্র তার ইবাদতের জন্য। আর ইবাদতের মূল মর্মবাণী হলো আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের সামনে সর্বতোভাবে অবনমিত হওয়া; যাকে পরিভাষায় সেজদা বলা হয়। সেজদা হলো আল্লাহর হক এবং আল্লাহর প্রতি যাবতীয় ইবাদতের শ্রেষ্ঠাংশ। মহান আল্লাহ মানুষকে নামাজ পড়ার নির্দেশ দিয়েছেন। অতঃপর মানব জাতির সেজদার প্রতীক হিসেবে কাবাগৃহকে নির্ধারণ করেছেন। ফলে সমগ্র বিশে^র মানুষ আল্লাহর আদেশে কাবাগৃহকে কিবলা হিসেবে ব্যবহার করে আসছে। ঠিক তেমনি সৃষ্টির সূচনায় আদমকে (আ.) ‘কিবলা’ বানিয়ে সেজদা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। ফেরেশতারা এই নির্দেশ পালন করেন। কিন্তু ইবলিস সেজদা করতে অস্বীকার করে। এ ঘটনার মাধ্যমে সিজদার মাহাত্ম্য ও তাৎপর্য প্রকাশিত হয়।
আল্লাহকে সৃষ্টিজগতের সেজদা
পৃথিবীর সব কিছুই মহান আল্লাহর জন্য সেজদা করে। কোরআনে বর্ণিত হয়েছে, ‘আর আল্লাহকে সেজদা করেÑ যা কিছু আছে নভোমণ্ডলে ও ভূমণ্ডলে এবং তাদের ছায়াসমূহও (সেজদা করে); সকালে ও সন্ধ্যায়, ইচ্ছায় ও অনিচ্ছায়।’ (সুরা রাদ, আয়াত : ১৫)। অন্যত্র আল্লাহ আরও বলেন, ‘তুমি কি দেখো না যে আল্লাহকে সেজদা করে যা কিছু আছে নভোমণ্ডলে ও ভূমণ্ডলে, সূর্য, চন্দ্র, নক্ষত্ররাজি, পর্বতরাজি, বৃক্ষলতা, জীবজন্তু ও বহু মানুষ। আর বহু মানুষ (যারা সেজদা করতে অস্বীকার করেছে) তাদের ওপর শাস্তি অবধারিত হয়েছে। বস্তুত আল্লাহ যাকে লাঞ্ছিত করেন তাকে সম্মানদাতা কেউ নেই। নিশ্চয়ই আল্লাহ যা চান তা-ই করেন।’ (সুরা হজ, আয়াত : ১৮)
শুধু নিম্নজগতে নয়, সেজদার এই নিয়ম রয়েছে ঊর্ধ্বজগতেও। সেখানে ফেরেশতা মহান আল্লাহর উদ্দেশে সেজদা করেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘তারা কি আল্লাহর সৃষ্ট বস্তুসমূহের প্রতি লক্ষ করে না। তাদের ছায়া ডানে ও বাঁয়ে ঢলে পড়ে আল্লাহর প্রতি সিজদাবনত হয় বিনীতভাবে? আসমান ও জমিনে যত প্রাণী আছে, সবই আল্লাহকে সেজদা করে এবং ফেরেশতারাও। আর তারা অহঙ্কার করে না।’ (সুরা নাহল, আয়াত : ৪৮-৪৯)
দুনিয়া ও আখিরাতে সিজদার পরীক্ষা
সমগ্র সৃষ্টিজগতের সব জীব ও জড় বস্তু আল্লাহর ইবাদত করে বা সেজদা করে। কিন্তু মানুষ ও জিন ছাড়া কারো হিসাব হবে না এবং পরীক্ষাও হবে না। সেজদার এই পরীক্ষা হবে দুনিয়া ও আখিরাতে। একদল দুনিয়ায় আল্লাহকে সেজদা করে। পরকালের পরীক্ষায়ও এই দল আল্লাহর পদতলে সিজদার মাধ্যমে জয়যুক্ত হবে, আল্লাহর সান্নিধ্যে পৌঁছে পরম সুখে অনন্তকালের জান্নাতে বসবাস করবে। পক্ষান্তরে আরেক দল আল্লাহকে সেজদা করে না। আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণও করে না। এদের সম্পর্কে মহান আল্লাহ বলেন, ‘অতএব তাদের কী হলো যে তারা বিশ^াস স্থাপন করে না এবং যখন তাদের কাছে কোরআন পাঠ করা হয়, তখন তারা সেজদা করে না।’ (সুরা ইনশিকাক, আয়াত : ২০-২১)। আল্লাহকে অস্বীকারকারী এই দল সেজদা না করার কারণে পরকালেও আল্লাহর পরীক্ষায় সেজদা করতে পারবে না। ফলে তারা জাহান্নামে নিক্ষিপ্ত হবে। এ বিষয়ে ইরশাদ হয়েছে, ‘স্মরণ করো, যেদিন পায়ের গোছা উন্মোচিত করা হবে এবং তাদের সেজদা করার জন্য আহ্বান করা হবে, কিন্তু তারা তা করতে সক্ষম হবে না। তাদের দৃষ্টি অবনত থাকবে, তারা লাঞ্ছনাগ্রস্ত হবে। অথচ যখন তারা সুস্থ ও স্বাভাবিক ছিল, তখন তাদের সেজদা করতে আহ্বান জানানো হয়েছিল। অতএব যারা এই কালামকে মিথ্যা বলে, তাদের আমার হাতে ছেড়ে দিন, আমি এমন ধীরে ধীরে তাদের ধরব যে তারা জানতে পারবে না।’ (সুরা কলম, আয়াত : ৪২-৪৪)। এ বিষয়ে হাদিস শরিফে এসেছে, ‘কিয়ামতের দিন মহান আল্লাহ মানুষের উদ্দেশে বলবেন, আমি কি তোমাদের রব? সবাই বলবে, হ্যাঁ, আপনিই আমাদের রব। (সে সময়) নবীরা ছাড়া আর কেউ তাঁর সঙ্গে কথা বলবে না। আল্লাহ তাদের জিজ্ঞেস করবেন, তোমরা কি কেউ তার কোনো চিহ্ন জানো? তারা বলবে, পায়ের নলার তাজাল্লি। সেই সময় পায়ের নলা উন্মোচন করা হবে। তখন সব ঈমানদার ব্যক্তি সিজদায় পড়ে যাবে। তবে যারা দুনিয়ায় প্রদর্শনীর জন্য আল্লাহকে সেজদা করত তারা থেকে যাবে। তারা সে সময় সেজদা করতে চাইলে তাদের মেরুদণ্ডের হাড় শক্ত হয়ে একটি তক্তার মতো হয়ে যাবে (তাই তারা সেজদা করতে পারবে না)।’ (বুখারি, হাদিস : ৭৪৩৯)
আল্লাহর সবচেয়ে কাছে যাওয়ার মাধ্যম
সেজদার মাধ্যমে বান্দা আল্লাহর সবচেয়ে কাছাকাছি হয়। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিতÑ রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘বান্দা আল্লাহর অধিক নিকটবর্তী হয়, যখন সিজদারত থাকে। অতএব তোমরা তখন অধিক দোয়া করতে থাকো।’ (মুসলিম, হাদিস : ৪৮২)। হজরত রাবিআহ ইবনে কাব (রা.) থেকে বর্ণিতÑ তিনি বলেন, ‘আমি রাসুলুল্লাহর (সা.) সঙ্গে রাতযাপন করতাম। একদা আমি তাঁর অজু ও ইসতেঞ্জা করার জন্য পানি আনলাম। তখন তিনি আমাকে বললেন, তোমার কিছু চাওয়ার থাকলে চাইতে পারো। তখন আমি জিজ্ঞেস করলাম, হে আল্লাহর রাসুল! আমি আপনার সঙ্গে জান্নাতে থাকতে চাই। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ওটা ছাড়া আর কিছু চাও কি? আমি বললাম, এটাই চাই। রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, তাহলে বেশি বেশি সেজদার দ্বারা তুমি এই ব্যাপারে আমাকে সাহায্য করো।’ (মুসলিম, হাদিস : ৪৮৯)। নবীজি (সা.) বলেছেন, ‘আমার যেকোনো উম্মতকে কিয়ামতের দিন আমি চিনে নিতে পারব। সাহাবিরা জিজ্ঞেস করেন, এত মানুষের মধ্যে আপনি তাদের কীভাবে চিনবেন? তিনি বলেন, তোমরা যদি কোনো আস্তাবলে প্রবেশ করো যেখানে নিছক কালো ঘোড়ার মধ্যে এমন সব ঘোড়াও থাকে, যেগুলোর হাত, পা ও মুখ ধবধবে সাদা, তবে কি তোমরা উভয়ের মধ্যে পার্থক্য করতে পারবে না? সাহাবিরা বললেন, হ্যাঁ, পারব। তিনি বলেন, ওই দিন সিজদার কারণে আমার উম্মতের চেহারা সাদা ধবধবে হবে, আর অজুর কারণে হাত-পা উজ্জ্বল সাদা হবে।’ (মুসনাদে আহমাদ, হাদিস : ২৮৩৬)। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বেশি বেশি তার কুদরতি কদমে সেজদাবনত হওয়ার মাধ্যমে তার নৈকট্য লাভের তাওফিক দান করুন। আমিন।







সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]