ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ১২ জুলাই ২০২০ ২৭ আষাঢ় ১৪২৭
ই-পেপার রোববার ১২ জুলাই ২০২০

কর্মকর্তাকে মারধরের জের
সিদ্ধিরগঞ্জে ৩ পোশাক কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা
সিদ্ধিরগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ ) প্রতিনিধি
প্রকাশ: বুধবার, ৩ জুন, ২০২০, ১১:১৮ পিএম আপডেট: ০৩.০৬.২০২০ ১২:২৮ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 95

সিদ্ধিরগঞ্জে কাজে যোগদানকে কেন্দ্র করে কিছু উচ্ছৃঙ্খল শ্রমিক একটি তৈরি পোশাক কারখানার (গার্মেন্ট) কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক ও অপর কারখানায় ৩ নিরাপত্তা প্রহরীকে মারধর করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবারের এ ঘটনায় গার্মেন্ট মালিক ৩টি কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছেন। কারখানা ৩টি হচ্ছে আহসান অ্যাপারেলস, আহসান নিটিং ও একে ফ্যাশন।
ঘটনার বিবরণে জানা গেছে, লকডাউনের সময় গার্মেন্ট লে-অফ ছিল। পরবর্তিতে সীমিত আকারে গার্মেন্ট চালু করা হয় । লকডাউনের সময় এবং কারখানা চালু করার পরও যে সকল শ্রমিক কর্মচারী কাজে যোগদান করেনি তাদের বেসিক ৬০ ভাগ হারে মালিকপক্ষ দিয়ে আসছে। গার্মেন্ট পুরোপুরি চালু না হওয়ায় ৩০০ শ্রমিক-কর্মচারী কাজে যোগদান করতে পারেনি। তবে গার্মেন্টের ইউনিট পুরো পুরি চালু হলে পর্যায়ক্রমে সকল শ্রমিক-কর্মচারীকে কাজে পুনর্বহাল ঘোষণা দিয়েছে মালিক পক্ষ। কিন্তু কতিপয় উচ্ছৃঙ্খল শ্রমিকের ইন্ধনে যারা কাজে যোগদান করেনি তাদেরকে ছাঁটাই করা হবে এ খবর ছড়িয়ে দেয় সাধারণ শ্রমিক-কর্মচারীদের মাঝে। এ নিয়ে শ্রমিকদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। মঙ্গলবার সকালে ৩টি গার্মেন্টের ২২শ শ্রমিকের মধ্যে ১৯শ  শ্রমিক-কর্মচারী কাজে যোগদান করে। কিন্তু উছৃঙ্খল শ্রমিকরা আহসান এ্যাপারেলস এর সামনে জড়ো হয়ে গার্মেন্টের পরিচালক আব্দুর রাজ্জাককে একা পেয়ে বেধড়ক মারধর করে মোবাইল ও মানিব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। এ সময় উপস্থিত শিল্প পুলিশের কয়েক সদস্য দাঁড়িয়ে এ দৃশ্য দেখলেও তারা ঐ মালিককে শ্রমিকদের রোষানল থেকে বাঁচাতে এগিয়ে আসেনি বলে অভিযোগ রয়েছে। বিক্ষুদ্ধ শ্রমিকরা একই মালিকের অপর গার্মেন্ট একে ফ্যাশন’র সামনে গিয়ে ৩ নিরাপত্তা প্রহরীকে মারধর করে। পরে শিল্প পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার মো. আইনুল হকের নেতৃত্বে একদল শিল্প-পুলিশ এবং সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।
গার্মেন্ট পরিচালক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, শ্রমিকদের কোনো বেতনভাতা ও বোনাস বকেয়া বাকি নেই। আর যেসব শ্রমিক-কর্মচারী কাজে যোগ দেয়নি তাদের আমরা ৬০ ভাগ হারে বেতন দিয়েছি, বোনাসও দিয়েছি।  
তিনি আরও বলেন, যেহেতু গার্মেন্ট পুরোপুরি চালু হয়নি তাই ৩০০ শ্রমিক-কর্মচারীকে আমরা পর্যায়ক্রমে ইউনিট চালু করব এবং নেওয়ার একাধিকবার আশ^াস দেওয়ার পরেও উছৃঙ্খল শ্রমিক আমার ওপর অতর্কিতভাবে হামলা করেছে।
এ ব্যাপারে অন্য পরিচালকের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে পরিচালক আব্দুর রাজ্জাক জানান।
এদিকে দুপুর ১২টার দিকে গার্মেন্ট পরিচালক রুবাইয়াত শিল্প পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার মো. আইনুল হকের সামনে শ্রমিকদের জানিয়ে দেন গার্মেন্ট অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ থাকবে। গার্মেন্ট এলাকায় নাশকতা এড়াতে শিল্প পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]