ই-পেপার মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪
মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪

ঘুঘুর ছানা
প্রকাশ: শনিবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৯:০৬ এএম  (ভিজিট : ৩২৫)
মায়াকানন একটি অদ্ভুত সুন্দর বন। বনটি অনেক বড়। বনের মাঝখানে একটি খাল বয়ে গেছে। এই বনে একটি সাদা ঘুঘু তার একটি ছানার সঙ্গে আরামে বাস করে। একদিন ঘুঘু খাবারের সন্ধানে বাসা থেকে বেরিয়ে গেল। কিছুক্ষণ পরে যখন সে ফিরে আসে, তখন দেখতে পেল যে তার ছানা বাসাটিতে নেই।

বাসার আশপাশে ছানাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও পেল না। ঘুঘুর ছোট্ট হৃদয় দুঃখে ভরে গেল। উড়তে উড়তে ছানাকে সব জায়গায় খুঁজল। কিন্তু কোথাও খুঁজে পাওয়া গেল না। ক্লান্ত হয়ে সে খালের ধারে বসে কাঁদতে লাগল।

পানিতে একটি মাছ সাঁতার কাটছিল। ঘুঘুটিকে এভাবে কাঁদতে দেখে পানি থেকে মাথা বের করে বলল, সুন্দর ঘুঘু! তোমার কী হলো যে তুমি এভাবে কাঁদছো? তুমি কি অসুস্থ?
ঘুঘুটি উত্তর দিল, আমি অসুস্থ নই। আমি কাঁদছি কারণ আজ যখন আমি বাসায় ফিরে এসেছি, তখন দেখলাম যে আমার ছানাটি সেখানে নেই। আমি ভয় পাচ্ছি যে সে বনে বেড়াতে গেছে। সে অবশ্যই হারিয়ে গেছে, কারণ সে খুব ছোট।

মাছটি বলল, ওকে দেখাশোনা করা তোমার কর্তব্য ছিল। আমি তোমার মতোই একজন মা। আমি বুঝতে পারছি তুমি এখন কতটা কষ্ট পাচ্ছ।
ঘুঘু বলল, আমি আরও চিন্তিত কারণ আমার ছানা এখনও খুব ছোট। সে জানে না কীভাবে নিজেকে রক্ষা করতে হয়।
মাছ বলল, আমি তোমাকে তোমার ছানা খুঁজে পেতে সাহায্য করব। আমি তার খোঁজে খালের অপর প্রান্তে যাব।
ঘুঘু বলল, ধন্যবাদ, কিন্তু আমার ছানা একটা পাখি, সে মাছ নয়। তাই পানিতে থাকতে পারে না।

মাছটি বলল, হয়তো তার পিপাসা পেয়েছে এবং সে খালে পানি খেতে এসেছে। তাই আমি তাকে খুঁজতে যাই। তুমিও তাকে খোঁজো। কান্নাকাটি করে কোনো লাভ নেই। তোমার ছানা তোমার কাছে ফিরে আসবে।
মাছটিকে ধন্যবাদ জানিয়ে ছানার সন্ধানে চলে গেল ঘুঘু। অনেকক্ষণ খুঁজতে থাকে, কিন্তু না পেয়ে মাঠের মধ্যে মাটিতে বসে পড়ে সে কাঁদতে লাগল।

একটি খরগোশ মাঠে কচি ঘাস খাচ্ছে। ঘুঘুকে দেখে কাছে এসে জিজ্ঞেস করল, কী ব্যাপার? কাঁদছো কেন? ক্ষুধার্ত হলে আমি তোমাকে খাবার খুঁজে পেতে সাহায্য করব। এখানে খাওয়া-দাওয়ার অনেক সুস্বাদু জিনিস আছে।
ঘুঘু কেঁদে উত্তর দিল, আমার খিদে নেই।
খরগোশ বলল, তাহলে কী ব্যাপার, কাঁদছো কেন?

ঘুঘু বলল, আমি কাঁদছি কারণ আমি আমার সুন্দর ছোট্ট ছানাটিকে হারিয়েছি। অনেকক্ষণ হয়ে গেছে, তাকে খুঁজে বেড়াচ্ছি।
যদিও খরগোশ খেতে ব্যস্ত, তবুও সে ঘুঘুটিকে আশ্বস্ত করে বলল, দুঃখ পেও না। আমি তোমাকে তোমার ছানা খুঁজে পেতে সাহায্য করব। আমি যত দ্রুত সম্ভব দৌড়ে তাকে সারা বনে খুঁজে দেখব।

ঘুঘু তাকে ধন্যবাদ জানিয়ে উড়ে গেল। খরগোশও ঘুঘুর ছানা খুঁজতে বনে গেল। ছানার সন্ধানে উড়ে বেড়াতে বেড়াতে ঘুঘুটি একটি তৃণভূমিতে একটি গাধা চড়তে দেখল। গাধার কাছে এসে জিজ্ঞাসা করল, তুমি কি একটা ঘুঘুর ছানা দেখেছ?

গাধাটি তার সমস্ত মূর্খতার সঙ্গে উত্তর দিল, তুমি একটি অদ্ভুত অপ্রয়োজনীয় প্রশ্ন করেছ। তুমি কি কখনো এমন গাধাকে দেখেছ যে আকাশের দিকে তাকায়? আমরা গাধারা সবসময় ঘাস খাই বা বোঝা বহন করি, উভয় ক্ষেত্রেই আমরা মাথা নিচু করে থাকি।

ঠিক তখনই একটা কালো বিড়াল এসে জিজ্ঞেস করল, কী ব্যাপার?
গাধা বলল, ঘুঘুর ছানা হারিয়ে গেছে, দেখেছ?
বিড়ালটি বলল, দুঃখিত, আমি তাকে দেখতে পাইনি। আমি যদি তাকে খুঁজে পেতাম, তাহলে নাস্তা করতাম।

কথাগুলো শুনে ঘুঘু আবার কাঁদতে লাগল।
ঘুঘুকে কাঁদতে দেখে বিড়াল বলল, আমার মনে হয় তুমি নিজেকে আমার হাতে তুলে দাও যাতে আমি তোমাকে খেতে পারি। এতে তোমার দুঃখ দূর হবে এবং আমার ক্ষুধা নিবারণ হবে।
বিড়ালের কথা শুনে গাধাটি রেগে গেল। বিড়ালকে ধমক দিয়ে বলল, তুমি যদি এখন না যাও, আমি তোমাকে এত জোরে লাথি মারব যে, তুমি ক্ষুধার্ত কুকুরের কাছে গিয়ে পড়বে।

বিড়ালটি এই কথা শুনে পালাতে লাগল। বিড়াল চলে যাওয়ার পর গাধা ঘুঘুকে বলল, তাড়াতাড়ি করো। রাত আসছে। তুমি উড়ে যাও। বিড়ালের কথায় চিন্তিত হয়ো না।
ঘুঘুটি গাধাকে ধন্যবাদ জানিয়ে ছানার খোঁজে উড়ে গেল।

রাতের অন্ধকার ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়ছে। ক্লান্ত, শোকার্ত ঘুঘু অনিচ্ছায় তার বাসায় ফিরে গেল। কাছে পৌঁছে সে আনন্দে চিৎকার করে বলল, আমার ছানা!
বাসায় বসে আছে তার ছোট্ট ছানাটি। ঘুঘুর চোখে আনন্দের অশ্রু। ঘুঘু তার ছানাকে জিজ্ঞাসা করল, তুমি কোথায় ছিলে?

ছানাটি উত্তর দিল, আমি বাসা ছেড়ে বেড়াতে গিয়েছিলাম, কিন্তু ফিরে আসার সময় পথ ভুলে যাই।
ঘুঘু জিজ্ঞেস করল, তাহলে তুমি এখানে এলে কীভাবে?

ছানা উত্তর দিল, আমি পথ মনে করতে পারছিলাম না। কেউ আমার ভেতর থেকে পথ দেখিয়ে আমাকে এখানে নিয়ে এসেছে।
ঘুঘুর মনে পড়ে যে, সে ছোটবেলায় একদিন হারিয়ে গিয়েছিল। ছানাকে সে বলল, তুমি ঠিকই বলেছ। যখন কেউ তার পথ হারিয়ে ফেলে, তখন বাড়ির ভালোবাসা তাকে পথ দেখায় এবং তাকে বাড়িতে নিয়ে যায়।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫ | ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com
close