ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ১ এপ্রিল ২০২০ ১৭ চৈত্র ১৪২৬
ই-পেপার  বুধবার ১ এপ্রিল ২০২০

সময় আর সমর্থন চাইলেন ডমিঙ্গো
ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশ: শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১১:১৫ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 14

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এক ক্রান্তিকাল পেরুচ্ছে বাংলাদেশ। বিশেষ করে টেস্ট ক্রিকেটে। অভিজাত এই সংস্করণে বড্ড অচেনা দেখাচ্ছ টাইগারদের। বিদেশের মাটিতে তো কথাই নেই, নিজেদের আঙিনাতেও সাফল্য যেন সোনার হরিণ! রাসেল ডমিঙ্গো কোচ হয়ে আসার পর চিত্রটা যেন আরও করুণ। ভারত এবং পাকিস্তানে সবশেষ তিন টেস্টে টাইগাররা হেরেছে ইনিংস ব্যবধানে। ন্যূনতম লড়াইটাও গড়তে পারেনি। কেন এমনটা হচ্ছে? জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ঘরের মাঠে একমাত্র টেস্টের আগের দিন শুক্রবার ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নটা করা হয়েছিল ডমিঙ্গোকে। জবাবে এই প্রোটিয়া জানিয়েছেন, বাংলাদেশের টেস্ট দল নিতান্তই অনভিজ্ঞ। তার মতে, অভিজ্ঞ হয়ে উঠতে এবং সাফল্য পেতে এই দলটাকে সময় দিতে হবে। সেই সময়টাই তিনি চাইলেন, চাইলেন সবার সমর্থনও।
ডমিঙ্গোর চোখে এই মুহূর্তে টেস্টে ক্রিকেট বিশে^র সবথেকে অনভিজ্ঞ দল বাংলাদেশ। তার এমন দাবি উড়িয়ে দেওয়ার উপায় নেই। দলে নেই সাকিব আল হাসান, নেই মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও। অভিজ্ঞদের কাতারে শুধু মুশফিকুর রহিম আর তামিম ইকবাল। চাইলে অধিনায়ক মুমিনুলকেও এই তালিকায় রাখা যায়। বাকিরা তো নিতান্তই অনভিজ্ঞ। ডমিঙ্গো ব্যাখ্যা করেই বললেন, ‘প্রত্যেককেই এটা বুঝতে হবেÑ এই দলের নাজমুল ৩টি টেস্ট খেলেছে, সাইফ তার দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে যাচ্ছে। আবু জায়েদ মাত্র ৭টি টেস্ট খেলেছে, ইবাদত ৪টি। দলটা খুবই অনভিজ্ঞ।’ সঙ্গে যোগ করলেন, ‘আমি যে দলটিকে কোচিং করাচ্ছি, এই মুহূর্তে টেস্ট ক্রিকেটে এটিই সবথেকে অনভিজ্ঞ দল।’
মাত্র তিনটি টেস্টে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেওয়া মুমিনুলও যে অধিনায়ক হিসেবে অনভিজ্ঞ, সেটাও মনে করিয়ে দিলেন কোচ। এমতাবস্থায় সাফল্য পাওয়ার জন্য সবাইকে ধৈর্য ধরতে বললেন ডমিঙ্গো। ‘বাংলাদেশের সবাই ক্রিকেটকে পাগলের মতো ভালোবাসে। দর্শক-গণমাধ্যম, সবকিছুই অবিশ^াস্য। তবে সবাইকে বিষয়টা বুঝতে হবে।’ সঙ্গে যোগ করলেন, ‘ধৈর্য ধরুন। ছেলেরা কঠোর পরিশ্রম করছে। সমর্থক এবং সংবাদমাধ্যমের সমর্থন ওদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। ভালো খেলতে হবে, ওরা এটা জানে। তবে শক্তিধর প্রতিপক্ষের সঙ্গে প্রতিদ্ব›িদ্বতা গড়তে কিছু সময় দরকার। সুতরাং ধৈর্য ধরুন। ওরা আপনাদের গর্বিত করবে।’ টেস্ট আঙিনায় দুই দশক পথচলার পরও বাংলাদেশ অনভিজ্ঞ! বিস্ময়করই বটে। তবে চোখে আঙুল দিয়েই বাস্তবতাটা দেখিয়ে দিলেন ডমিঙ্গো, ‘কঠিন সত্য হচ্ছে, আমি তো এখন সাকিবকে পাচ্ছি না। রুবেল হোসেন তো ১০ বছর ধরে খেলছে, তাকে টেস্ট দলে নেব আমি? এখন যারা আছে তাদের খেলিয়েই অভিজ্ঞ করে তুলতে হবে আমাদের।’
ডমিঙ্গো কথা বলেছেন আবারও বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের ‘মিস্টার ইন্টারফেয়ার’ হয়ে ওঠা নিয়েও। পাপনের সাফ কথা, ম্যাচের আগের দিনই একাদশ জানিয়ে দিতে হবে তাকে। জানাতে হবে ব্যাটিং অর্ডারসহ ম্যাচের যাবতীয় পরিকল্পনা। যা বলা হবে, ম্যাচে তার বাইরে কিছু করা যাবে না। স্বাভাবিকভাবেই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচের আগের দিন ডমিঙ্গোর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিলÑ একাদশ, ব্যাটিং অর্ডার আর পরিকল্পনার খুঁটিনাটি বিসিবি সভাপতিকে জানানো হয়েছে কি না? মুচকি হেসে ডমিঙ্গো জবাব দিলেন, ‘তিনি দল নিয়ে খুবই আবেগপ্রবণ। তিনি চান দল ভালো করুক। আজকে (শুক্রবার) এখনও পর্যন্ত তার সঙ্গে কথা হয়নি।’
এতটুকু বলেই প্রসঙ্গটা এড়িয়ে যেতে চেয়েছিলেন ডমিঙ্গো। কিন্তু পারেননি। প্রসঙ্গটা ফিরে আসার পর বললেন, ‘আমাকে এখনও কেউ বলেনি যে দল নিয়ে সবকিছু কাউকে বলতে হবে। এমন কিছু করতে হবে। সেই ধারণা আমার নেই। যেটি বললাম, বোর্ড সভাপতি দল নিয়ে খুব আবেগপ্রবণ। আমিও একইরকম। আমাকে তারা পারিশ্রমিক দেন কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য, নিজের কাজ করার জন্য। আমি সেসব করব।’ সঙ্গে যোগ করলেন, ‘ভুলে যাবেন না, আমি দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে এসেছি। ওখানেও অনেক ঝামেলা চলে। এমন নয় যে আমি ইংল্যান্ড বা অস্ট্রেলিয়া থেকে এসেছি, যেখানে সবকিছুই সহজ। নিজের ইচ্ছে মতো সবকিছু করা যায়। দক্ষিণ আফ্রিকাতে কাজটা কঠিন ছিল, দল নির্বাচন সহজ ছিল না। এসব সামলানো আমার কাজেরই অংশ।’
বিষয়গুলোতে তিনি অভ্যস্ত, সেটাই জানিয়ে দিলেন ডমিঙ্গো, ‘আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হলোÑ অধিনায়ক এবং ক্রিকেটারদের এসব থেকে দূরে রাখা। আমাকে হতে হবে মাঝের ব্যক্তি। অনেক বড় ভ‚মিকা এটি। তবে দক্ষিণ আফ্রিকায় আমি এমনটা করেছি। ওখানেও অনেক ঝামেলা আর চ্যালেঞ্জ থাকে। এটা আমার জন্য নতুন কিছু নয়। আমি এসবে অভ্যস্ত।’ কোচ এসব থেকে অধিনায়ককে দূরে রাখতে চাইলেও সংবাদ সম্মেলনে একই প্রশ্ন ছুটে গিয়েছিল মুমিনুলের দিকে। প্রশ্নটা পুরোপুরি এড়িয়ে গিয়ে টাইগার দলপতি বললেন, ‘আমি ওনার মন্তব্য শুনিনি। আপনাদের কাছ থেকেই শুনছি। ঠিক জানি না। আমার জন্য মন্তব্য করা কঠিন।’





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]